বরিশাল

বরিশাল বিভাগের মধ্যে বেশী পূজা অনুষ্ঠিত হবে আগৈলঝাড়ায়

‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার’ এ মতবাদকে ধারণ করে সনাতন ধর্মের অনুসারীসহ অন্যান্য ধর্মের লোকদেরও ব্যাপক আগ্রহ আর উচ্ছ্বসিত আকাঙ্খার মধ্য দিয়ে অন্যান্য বছরের মত এবারও বরিশাল বিভাগের মধ্যে আগৈলঝাড়া উপজেলায় সবচেয়ে বেশী পূজার আয়োজন করা হয়েছে। আর এজন্য সরকারী বরাদ্দ পাওয়া গেছে ৫৭ মে.টন চাল।

প্রতিমা তৈরীর পাশাপাশি মন্ডপ তৈরীর কাজও প্রায় শেষপর্যায়ে।

মৃৎশিল্পীরা জানান, প্রতিমার রং-তুলির কাজ শেষ হয়েছে। অনেক বেশী পূজামন্ডপ, তাই রাতদিন কাজ করা হয়েছে। সরকারী হিসেব মতে, উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে এবছর ১শ’ ৪২টি পূজামন্ডপ তৈরি হয়েছে।

এরমধ্যে উপজেলার রাজিহার ইউনিয়নে ৪২টি, বাকাল ইউনিয়নে ৩৪টি, বাগধা ইউনিয়নে ২০টি, গৈলা ইউনয়নে ২২টি ও রত্নপুর ইউনিয়নে ২৪টি পূজামন্ডপে পূজার সকল প্রস্তুতি শেষপর্যায়ে রয়েছে। ১শ’ ৪২টি পূজামন্ডপের মধ্যে ৫২টি পূজামন্ডপকে অধিক ঝুঁকিপূর্ণ, ৬৫টি পূজামন্ডপকে কম ঝুঁকিপুর্ণ ও ২৫টি পূজামন্ডপকে সাধারণ মন্ডপ হিসেবে চিহ্নিত করেছে প্রশাসন। এবছর পূজার জন্য সরকারী বরাদ্দ পাওয়া গেছে ৫৭ মে.টন চাল। প্রতিটি পূজামন্ডপে ৯ হাজার করে টাকা বিতরণ করা হয়েছে।

বিশৃঙ্খলা ও নাশকতা রোধে তিন স্তরের নিরাপত্তা বলয় তৈরী করতে পুলিশ মোতায়েনের পাশাপাশি আনসার ও সাদা পোশাকধারী পুলিশ নিয়োজিত থাকবে। পাশাপাশি র‌্যাব-৮ এর টহল দল থাকবে ভ্রাম্যমান নজরদারীতে।

আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর দেবীর অধিবাসের মধ্য দিয়ে শারদীয় উৎসবের ৫ দিন ব্যাপী পূজা উৎসব শুরু হবে।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...