জাতীয়

সরকার অবৈধ, নিজেরাই সংবিধান লঙ্ঘন করেছে: খালেদা জিয়া

বর্তমান সরকারকে অবৈধ আখ্যায়িত করে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, যারা ক্ষমতায় আছে তারা অবৈধ। এরা অবৈধ সরকার হয়ে কীভাবে সংসদে বসে লম্বা লম্বা কথা বলেন? আবার আইন পাস করেন। এরা সংবিধানের কথা বলে আর নিজেরাই সংবিধান লঙ্ঘন করে চলছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের নিয়াজ মুহাম্মদ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে মঙ্গলবার বিকেলে ২০-দলীয় জোটের জনসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

জনসভায় উপস্থিত জনতার উদ্দেশে প্রশ্ন রাখেন, ‘আপনারা ভোট দিয়েছিলেন কি দেননি?’ জনগণ এ সময় ‘না’, ‘না’ বলে জবাব দেন।

খালেদা জিয়া বলেন, তাহলে কী করে এই অনির্বাচিত সরকার সংসদে বসে থাকে। তারা কীভাবে লম্বা লম্বা কথা বলে আর আইন পাস করে।

‘গ্রেফতারের ভয় দেখিয়ে লাভ নেই’

মামলা ও গ্রেপ্তারের ভয় দেখিয়ে কোনো ‘লাভ’ হবে না জানিয়ে খালেদা জিয়া বলেছেন, ১/১১ এর পরে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা ও তার দলের নেতাদের নামে মামলা হয়েছিল। বিএনপি নেতাকর্মীদের নামেও মামলা হয়েছিল। হাসিনা ক্ষমতায় আসার পরে তার নামে ও তার দলের লোকদের নামে করা মামলা তুলে নিয়েছে। কিন্তু আমাদের মামলাগুলো রেখে দিয়েছে, আমাদের যাতে হয়রানি করা যায়।

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, তারা (সরকার) আমাকে গ্রেপ্তারের ভয় দেখায়। আমি গ্রেপ্তারের ভয় পাই না, পেলে আরো আগে চলে যেতাম। তিনি (হাসিনা) তো চলে গিয়েছিলেন, আমি কি গিয়েছিলাম? আমার জনগণকে রেখে আমি কোথাও পালিয়ে যাইনি।

সম্প্রতি ‘জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট’ ও ‘জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট’ দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়া ও তার বড় ছেলে তারেক রহমানসহ কয়েক বিএনপি নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে আদালত। সোয়া পাঁচ কোটি টাকা আত্মসাতের ওই দুই মামলার একটিতে সোমবার সাক্ষ্যগ্রহণও শুরু করা হয়েছে।

‘পছন্দমতো রায়ের জন্যই সংবিধান সংশোধন’

জনসভায় খালেদা জিয়া বলেছেন, বিচার বিভাগের কোনো স্বাধীনতা নেই। সরকার যা বলে সেভাবেই রায় দিতে হয়। সংবিধানের নতুন সংশোধনীর ফলে এখন বিচার বিভাগকে ভয় দেখিয়ে সরকার রায় করাবে। সরকারের পছন্দমতো রায় না দিলে এই আইনে তাঁদের অপসারণ করবে।

বিচারপতিদের অভিশংসন আইন অবিলম্বে বাতিল করতে হবে দাবি করে তিনি বলেন, এটি বাতিল না হলে এক দিন কেন, আরও হরতাল, আরও কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে।

‘আওয়ামী লীগ হলো হাঁটি হাঁটি খাই খাই দল’

এই সরকার লুটপাট করছে এমন অভিযোগ তুলে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেছেন, বিনা ভোটে ক্ষমতায় বসে একের পর এক অবৈধ আইন করছে সরকার। জনগণের টাকা লুট করছে। এক দিন জনগণের কাঠগড়ায় জবাবদিহি করতে হবে তাদের।

আওয়ামী লীগ দলটি হলো ‘যা পাই তা-ই খাই। হাঁটি হাঁটি, খাই খাই’ এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ দেশে একদলীয় শাসন কায়েম করেছে। বিদ্যুতের উৎপাদন নিয়ে জনগণকে ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করছে। কুইক রেন্টালের নামে জনগণের টাকা লুট করছে সরকার।

আওয়ামী লীগ সরকারের লুটপাটের বর্ণনা দিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকার যখনই ক্ষমতায় আসে তখনই দুর্নীতি আর লুটপাট করে। ২০০৯ সালে ক্ষমতার এসে শেয়ারবাজার থেকে এক লাখ কোটি টাকা, ডেসটিনি থেকে ৩৮ হাজার কোটি, হলমার্ক থেকে তিন হাজার ৫০০ কোটি, বিসমিল্লাহ গ্রুপ থেকে এক হাজার ২০০ কোটি, বেসিক ব্যাংক থেকে চার হাজার ৫০০ কোটি, রূপালি ব্যাংখ থেকে এক হাজার ২০০ কোটি, কৃষি ব্যাংক থেকে ৬০০ কোটি ও জনতা ব্যাংক থেকে ৬০০ কোটি টাকা লুটপাট করেছে। লুটপাট করে এসব টাকা তারা বিদেশে পাচার করে দিয়েছে।

তাই অর্থমন্ত্রী স্বীকার করেছেন ব্যাংকগুলো দেউলিয়া হয়ে গেছে। জনসম্মুখে এই সত্য কথা স্বীকার করার জন্য অর্থমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান খালেদা জিয়া।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

Tags

আরো পোষ্ট...