বরিশাল

যাত্রী সেবার নামে এমভি গ্রীন লাইনের প্রতারণা

যাত্রীসেবার নামে একের পর এক প্রতারনা করে যাচ্ছে দ্রুতগতির তাকমা লাগানো এমভি গ্রীনলাইন ২ এবং ৩।বরিশাল-ঢাকা রুটের দিবা নৌ- সার্ভিস গ্রীন লাইনের নির্ধারিত সময়ে মধ্যে গন্তব্যে পৌছে না দেয়ার বিড়ম্বনার সাথে সাথে যাত্রীদের মাঝে নিম্নমানের খাবার সরবরাহের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুরু থেকে তারা মাত্র ৫ ঘন্টায় ঢাকা- বরিশাল রুটে আসা যাওয়ার কথা বললেও তাদের ঢাকা-বরিশাল রুটে চলতে সময় লাগছে কমপক্ষে ৭ থেকে ৮ ঘন্টা।বরিশাল থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করা যাত্রীরা জানান, ওয়াটার ওয়েজ কোম্পানির এমভি গ্রীন লাইন নৌযান কর্তৃপক্ষ সাধারন যাত্রীদের সাথে স্বল্প সময়ে পৌছে দেয়ার প্রলোভন দিয়ে প্রতারণা শুরু করেছে। উদ্বোধনের পর থেকেই প্রতিনিয়ত কর্তৃপক্ষের মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে নেয়া হচ্ছে না কোন কার্যকরি ব্যবস্থা।

এছাড়া যাত্রীদের খাবার ফ্রী দেওয়ার কথা অনুযায়ী খাবার অত্যন্ত নিম্নমানের। গ্রীনলাইনে যাতায়াত করার সময় তাদের দেওয়া খাবার খেয়ে পেটের পীড়ায় আক্রান্ত হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে বলে জানিয়েছেন গ্রীনলাইনে যাতায়াতকারী একাধিক যাত্রী। এমনকি এবারের ঈদে অতিরিক্ত যাত্রিবহনের অভিযোগ আছে এই অত্যাধুনিক সার্ভিসের তাকমা লাগানো নৌ-যানটিতে।বিভিন্ন সময় সরেজমিনে দেখা যায়, অত্যাধুনিক ক্যাটাম্যারান সার্ভিসের জাহাজ দুটিতে ৭০০ এবং এক হাজার টাকা দিয়ে টিকেট কিনে নির্ধারিত আসন না পেয়ে প্লাস্টিকের চেয়ারে করে এ রুটে চলাচল করতে হচ্ছে সাধারন যাত্রীরা।আবার অন্যদিকে টিকেট কালবাজারীর অভিযোগ পাওয়া গেছে এই জাহাজ দুটির বিরুদ্ধে।সব মিলিয়ে জাহাজটিতে একবার ভ্রমন করা প্রায় সকল যাত্রীরাই গ্রীন লাইন জাহাজ বর্জন করে দ্বিতীয় বার আর মিথ্যাচারের শিকার হয়ে ঐ জাহাজে ভ্রমন না করার আঙ্গিকার করেন। এমনকি অন্যকেও একই পরামর্শ দেন বলে জানা যায়।

নিম্নমানের যাত্রী সেবা, সময় বিড়ম্বনা, চেয়ারে যাত্রীবহন এবং নিম্নমানের খাবার যাত্রীদের মাঝে পরিবেশনের বিষয়ে গ্রীন লাইন কোম্পানির বরিশালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বাদশা’র সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, ঢাকা-বরিশাল নৌ রুটে গত বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে ক্যাটাম্যারান টাইপের চেয়ার সিটের ‘এমভি গ্রীন লাইন-২’ ও ‘এমভি গ্রীন লাইন-৩’ নামের দুটি জাহাজ দিনের বেলায় চলাচল করা শুরু করে। এসময় তারা তাদের কোম্পানির প্রাচারনায় বলেন এ জাহাজে মাত্র পাঁচ ঘণ্টায় গন্তব্যে পৌঁছানো যাবে। এছাড়া গত বছরের একই মাসের ৮ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার ঢাকা সদরঘাটের নবনির্মিত লালকুঠি ঘাট বিশেষ টার্মিনালে জাহাজ দুটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খান। এ সময়ে মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য সাগুপ্তা ইয়াসমিন এমিলি, বরিশাল-৫ আসনের সংসদ সদস্য জেবুন্নেছা আফরোজ, গ্রীন লাইন ওয়াটার ওয়েজের স্বত্বাধিকারী মো. আলাউদ্দিন ও বিআইডাব্লিটিউ এর সদস্য (অপারেশন) ভোলা নাথ দে উপস্থিত ছিলেন।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...

Leave a Reply