গৌরনদী সংবাদ

নিরাপদে ভিক্ষা করার নিশ্চয়তা চান বাবুল

যতদিন বেঁচে থাকবেন ততদিন সরকারের কাছে নিরাপদে ভিক্ষে করার নিশ্চয়তা চান গৌরনদীর বাবুল সরদার (৩৫) নামের এক ভিক্ষুক। ভিক্ষে পেশাটাকে তিনি ঘৃনা করেন, তার পরেও তিনি বাধ্য হয়ে ভিক্ষে করছেন।

গৌরনদী উপজেলার কমলাপুর গ্রামের আজিজ সরদারের পুত্র বাবুল সরদার ছোট বয়স থেকেই শ্বাস রোগে ভুগছেন। তাই কোন কাজ কর্ম না করতে পেরে ভিক্ষেটাকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন তিনি।

বাবুল জানান, মুই পুলিশ দ্যাখলে জম্মের ভয় পাই। ৩ মাস আগে টরকী বইয়া এক দারোগার ধারে খয়রাত চাইয়া বিপদে পরছিলাম। উনি মোরে দুইয়া পিডান দিয়া গাড়ী ভইরা জেলে পাডাইছিল। বারো দিন জেল খাটছি। হের পর পুলিশের কাছে আর খয়রাত চাইনা। পুলিশ দেখলে পিলই কাঁপে।

 

৩ পুত্র ১ কন্যা ও স্ত্রী রোকসনাকে নিয়ে বাবুলের সংসার। রোজার মাসে তার আয় রোজগার হয়েছে সবচেয়ে বেশী। কাপড় পেয়েছেন ৮ খানা, নগদ টাকাও পেয়েছেন ৭ হাজার।

জানাগেছে, বাবুল এ যাবত ৫টি বিয়ে করেছেন। তবে শেষের স্ত্রী টিকে থাকলেও অন্যরা ভিক্ষুকের স্ত্রী মনে করে মান সম্মানের কথা ভেবে বাবুলকে ছেড়ে চলে গেছেন।

আল্লার কাছে বাবুলের শেষ মিনতি তার সন্তানরা যেন মানুষ হতে পারে। তার মতো কেউ যেন ভিক্ষার ঝুলি হাতে না নেয়।

৭ জনের সংসার চলে একমাত্র বাবুলের ভিক্ষের টাকায়। তবে বাবুলের মা বেঁচে নেই, বৃদ্ধ বাবার বাবার খেদমত করতে পেরে তিনি নিজেকে ধন্য মনে করেন।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

Tags

আরো পোষ্ট...