গৌরনদী সংবাদ

শহীদ এডিসি আজিজুলের মুড়াল নির্মান করলেন গৌরনদীর মিঠুন

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার সকালে মরোনত্তর স্বাধীনতা পদকে ভূষিত বরিশালের শহীদ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক কাজী আজিজুল ইসলামের মুড়াল উদ্বোধন করা হয়েছে। শহীদ এ বীর কর্মকর্তার স্মরনে তার স্মৃতিস্তম্ভ ও মুড়াল নির্মাণের রূপকল্প প্রনয়ণ ও বাস্তবায়ন করেন বর্তমান জেলা প্রশাসক মোঃ শহীদুল আলম। স্বেচ্ছাশ্রমে দীর্ঘ একমাস ধরে মুড়ালটি নির্মান করেছেন জেলার গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া গ্রামের সন্তান মিঠুন চন্দ্র মন্ডল।

বিজয় দিবস উপলক্ষে শহীদ এ কর্মকর্তার মুড়াল উদ্বোধনের সময় অন্যান্যদের মধ্যে বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ গাউস, জেলা প্রশাসক মোঃ শহীদুল আলম, পুলিশ সুপার একেএম এহসান উল¬াহ,ইউপি চেয়ারম্যান সৈকত গুহ পিকলু, জেলা প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তা, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, শহীদ এডিসি’র পরিবারের সদস্যসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন। স্বেচ্ছাশ্রমে মুড়ালটি নির্মাণ করেন তরুন প্রজন্মের শিল্পী খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ছাত্র মিঠুন চন্দ্র মন্ডল।

জানাগেছে, স্বাধীনতা যুদ্ধের উত্তাল মুহুর্তে তৎকালীন বরিশাল জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে কর্মরত ছিলেন কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম থানার চিওড়া গ্রামের কাজী আজিজুল ইসলাম।

ওইসময় তিনি দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে নিজের দাপ্তরিক গাড়িটি স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যবহার করতে দিয়ে নিজে চলতেন বাইসাইকেলে। মুক্তিযোদ্ধাদের সবধরনের সহযোগীতা করায় ওই বছরের ৫মে পাক সেনারা তাকে ধরে এনে কীর্তনখোলা নদী সংলগ্ন বধ্যভূমিতে (শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজের সম্মুখের ত্রিশ গোডাউনের অভ্যন্তরে) নৃশংসভাবে হত্যা করে। দীর্ঘদিন অযত্ন অবহেলায় পরে থাকা এ বীর কর্মকর্তার স্মৃতি রক্ষার্থে বর্তমান জেলা প্রশাসক মোঃ শহীদুল আলম শহীদ এডিসি’র স্মৃতিস্তম্ভ নির্মানের উদ্যোগ গ্রহণ করে ২০১৩ সালের ৫মে তা উদ্বোধন করেন।

চলতি মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে স্মৃতিস্তম্ভের পার্শ্বেই শহীদ এডিসি কাজী আজিজুল ইসলামের মুড়াল নির্মানের উদ্যোগ নেন জেলা প্রশাসক শহীদুল আলম।

স্বেচ্ছাশ্রমে মুড়াল নির্মানের শিল্পী খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থী জেলার গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া গ্রামের বাসিন্দা মিঠুন চন্দ্র মন্ডল জানান, স্মৃতিস্তম্ভ ও মুড়াল নির্মাণের রূপকল্প প্রনণয় এবং বাস্তবায়ন করেন জেলা প্রশাসক মোঃ শহীদুল আলম। তিনি আরো জানান, জেলার শ্রেষ্ঠ ইউপি চেয়ারম্যান সৈকত গুহ পিকলুর সহযোগীতায় এ মুড়ালটি নির্মানের জন্য সবমিলিয়ে তার এক মাস সময় লেগেছে।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...

Leave a Reply