জাতীয়

মীর কাসেমের বিরুদ্ধে ফাঁসির আদেশ

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সদস্য ও দিগন্ত মিডিয়া করপোরেশনের চেয়ারম্যান মীর কাসেম আলীকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। তার বিরুদ্ধে ১০টি অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।

রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ রায় দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২।

রায়ে ১১ ও ১২ নম্বর অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।

১১ নং অভিযোগ: শহীদ জসিম উদ্দিনসহ ছয়জনকে অপহণের পর নির্যাতন করা হয়। এতে জসিমসহ পাঁচজন নিহত হন এবং পরে লাশ গুম করা হয়।

১২ নং অভিযোগ: জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরীসহ তিনজনকে অপহরণ করে নির্যাতন করা হয়। এতে দু’জন নিহত হন এবং তাদের লাশ গুম করা হয়।

এছাড়া ২ নম্বর অভিযোগে ২০ বছর, ৩ নম্বরে ৭ বছর, ৪ নম্বরে ৭ বছর, ৬ নম্বরে ৭ বছর, ৭ নম্বরে ৭ বছর, ৯ নম্বরে ৭ বছর, ১০ নম্বরে ৭ বছর, ১৪ নম্বরে ১০ বছরসহ মোট ৭২ বছর কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

এছাড়া ১, ৫, ৮ ও ১৩ নম্বর অভিযোগে মীর আসেম আলীকে খালাস দেয়া হয়েছে।

এর আগে সকাল ৯টার দিকে কড়া নিরাপত্তায় তাকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ট্রাইব্যুনালে আনা হয়।

সকাল ১০টা ৫৫ মিনিটে রায় ঘোষণা শুরু করেন ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান। রায় পড়ার সময় ট্রাইব্যুনালে কাসেম আলীকে উদ্বিগ্ন দেখা গেছে।

বিচার কার্যক্রম চলাকালে মীর কাসেম আলী গাজীপুরে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি ছিলেন। রায় ঘোষণার জন্য গতকাল শনিবার তাকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়।

এদিকে জামায়াতের আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডের রায় দেয়ায় দুই দফায় ৭২ ঘণ্টার হরতাল ডেকেছে জামায়াত। বৃহস্পতিবার চলে প্রথম দফার হরতাল। রোববার সকাল ৬টা থেকে শুরু হয়েছে ৪৮ ঘণ্টার হরতাল। সেই হরতালের মধ্যেই মীর কাসেমের রায় দেয়া হলো আজ।

মীর কাসেম আলী জামায়াতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বেশ কয়েকটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদে রয়েছেন। ইবনে সিনা ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য ও ইসলামী ব্যাংকের সাবেক পরিচালক তিনি।

মীর কাসেম আলীকে গত বছর ১৭ জুন গ্রেপ্তার করা হয়। বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ মামলার কার্যক্রম সমাপ্ত ঘোষণা করে রায়টি অপেক্ষমান রাখেন। মামলাটি প্রথমে ট্রাইব্যুনাল-১-এ ছিল। পরে তা ট্রাইব্যুনাল-২-এ স্থানান্তর করা হয়।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...

Leave a Reply