গৌরনদী সংবাদ

গৌরনদীতে মাদক বিক্রির প্রতিবাদ করায় মুসুল্লীকে কুপিয়ে হত্যা

মাদক বিক্রির প্রতিবাদ করায় জেলার গৌরনদী উপজেলার বার্থী ইউনিয়নের নন্দনপট্টি গ্রামের আ’লীগ নেতা ও মাদক সম্রাট কর্তৃক এক মুসুল্লীকে কুপিয়ে হত্যা ও তার পুত্রকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে নয়টার দিকে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছেন। এ ঘটনায় ওইদিন গভীর রাতে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মামলার বাদি ও নিহতের পুত্র শাহআলম সরদার জানান, নন্দনপট্টি গ্রামে দীর্ঘদিন থেকে মাদকের রমরমা ব্যাবসা করে আসছিলো বার্থী ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও প্রভাবশালী আ’লীগ নেতা নান্নু মৃধা ও তার সহযোগীরা।

সম্প্রতি সময়ে এলাকাবাসির সাথে তার পিতা খাদেম সরদার (৫৫) মাদকের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিরোধ গড়ে তোলে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সোমবার রাতে এশার নামাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথিমধ্যে নান্নু ও তার সহযোগীরা অর্তকিত ভাবে হামলা চালিয়ে তার পিতা খাদেম সরদারকে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। এসময় খাদেম সরদারের চিৎকারে তার ছোট পুত্র আসলাম সরদার (২১) এগিয়ে আসলে তাকেও কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়।

স্থানীয়রা মুর্মুর্ষ অবস্থায় গুরুতর জখম পিতা-পুত্রকে উদ্ধার করে গৌরনদী হাসপাতালে নিয়ে আসলে কত্যর্বরত চিকিৎসকেরা খাদেম সরদারকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

আশংকাজনক অবস্থায় আসলাম সরদারকে তাৎক্ষনিক শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

নিহত খাদেম সরদার ওই গ্রামের মৃত আবুল কালাম ওরফে কালু সরদারের পুত্র।

এ ঘটনায় ওইদিন রাত সাড়ে বারোটার দিকে নিহতের পুত্র শাহ আলম সরদার বাদি হয়ে মাদক সম্রাট ও ইউপি সদস্য নান্নু মৃধা তার সহদর সেন্টু মৃধা সহযোগী পান্নু, আলাম, কালাম, সবুজ ও জাফর মৃধাকে আসামি করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

গৌরনদী থানার ওসি আবুল কালাম জানান, আসামিদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

[ আপডেট ]


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

Tags

আরো পোষ্ট...