বরিশাল

অবশেষে শিশুটি ফিরে পেল তার পরিবারকে

কচুরীপানার উপর থেকে উদ্ধার হওয়ার চার দিন পর ১৯ মাস বয়সী শিশু হাফিজকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে আগৈলঝাড়া উপজেলা সমাজসেবা অধিদপ্তর।

মঙ্গলবার সকালে উপজেলার গৈলায় অবস্থিত বরিশাল বিভাগীয় বেবী হোম চত্তরে শিশু হাফিজকে তার বাবা নজরুল প্যাদার কাছে হস্তান্তর করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহম্মেদ রাসেল। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন বেবী হোম উপ-তত্বাবধায়ক আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা সুশান্ত বালা, বিশিষ্ট সমাজসেবক মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রইচ সেরনিয়াবাত, গৈলা ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান দুলাল দাস গুপ্ত।

গৌরনদী উপজেলার শরিকল ইউনিয়নের দক্ষিণ সাঁকোকাঠী গ্রামের বাসিন্দা ও ১৯মাস বয়সী শিশু হাফিজের বাবা দিনমজুর নজরুল প্যাদা তার হারিয়ে যাওয়া ছেলেকে ফিরে পেয়ে আনন্দে আপ্লুত হয়ে বলেন, তাদের সংসারে চার মেয়ের পর একমাত্র ছেলে হাফিজ। তার স্ত্রী নাসিমা বেগমকে দীর্ঘদিন যাবত মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় অর্থের অভাবে গ্রামীণ টোটকা ও ফকিরি চিকিৎসা করানো হচ্ছে। গত ১২ জানুয়ারি শুক্রবার শিশু হাফিজকে নিয়ে তার মা নাসিমা বেগম বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর হাফিজ নিখোঁজ হয়। ছেলে নিখোঁজের বিষয়ে মা নাসিমা বেগম কোন উত্তর দিতে পারেনি। বাড়ি থেকে অন্তত দুই কিলোমিটার দূরে চন্দ্রহার গ্রামে খালের কচুরীপানার উপর ভাসতে দেখে স্থানীয়রা শিশুটিকে উদ্ধার করে ওই দিনই গৌরনদী থানায় হস্তান্তর করে।

গৌরনদী থানা পুলিশ এঘটনায় ওই দিনই একটি সাধারণ ডায়েরী (নং-৪৬২) করে সমাজসেবা অধিদপ্তরের আওতাধীন বরিশাল বিভাগীয় বেবী হোমে শিশুটিকে হস্তান্তর করেন।

শিশুটির সন্ধান পেয়ে তার বাবা নজরুল প্যাদা বেবী হোমে যোগাযোগ করেন। আইনী প্রক্রিয়া শেষে গতকাল মঙ্গলবার সকালে শিশু হাফিজকে আনুষ্ঠানিকভাবে তার বাবা নজরুল প্যাদার কাছে হস্তান্তর করেন প্রশাসন।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...