গৌরনদীতে যুবদল নেতার ওপর হামলা

বাড়ির প্রবেশের রাস্তার ওপর বালু রাখার প্রতিবাদ করায় গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় বরিশালের গৌরনদী উপজেলার কসবা এলাকায় হামলা চালিয়ে উপজেলা যুবদলের একাংশের যুগ্ম আহবায়ক এমএ গফুরকে মারধর করেছে কতিপয় যুবলীগ ও ছাত্রলীগ কর্মিরা।

এ সময় হামলাকারীরা যুবদল নেতার বসত ঘরে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে।

উপজেলা যুবদলের যুগ্ম-আহবায়ক এমএ গফুর অভিযোগ করে বলেন, সরকারি গৌরনদী কলেজ ছাত্র সংসদের এজিএস ও ছাত্রলীগের নেতা রিজভী জামান রিয়াদ ও উপজেলা যুবলীগের সদস্য রনি খান আমার বাড়ির সামনে রাস্তায় বালু জমা করে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। এতে আমার বাড়ি ও রাস্তা ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

শনিবার সকালে আমি এভাবে বালু রাখতে নিষেধ করলে তারা ক্ষিপ্ত হন। শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় আমি বাড়িতে ঢোকার পথে মোটর সাইকেল নিয়ে পড়ে যাই। এ সময় তাদেরকে এখানে ব্যবসা পরিচালনা করতে পুনরায় নিষেধ করায় আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে। এ নিয়ে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে যুবলীগ নেতা রনি খানের নেতৃত্বে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ৬/৭ কর্মী লাঠিসোটা নিয়ে আমার ওপর হামলা চালিয়ে আমাকে মারধর করে। আমি প্রাণ রক্ষায় দৌড়ে বাড়িতে প্রবেশ করলে হামলাকারীরা ধাওয়া করে বাড়িতে গিয়ে আমার বসত ঘরে হামলা চালায় এবং পিটিয়ে ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে বাড়ির ক্ষতি সাধন করে। এসময় বাড়ির সামনে রাখা আমার মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে রাত ১০টা পর্যন্ত আমাকে ঘরের মধ্যে অবরুদ্ধ করে রাখে।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে এজিএস রিজভী জামান রিয়াদ বলেন, ‘আমার সঙ্গে কোন ঘটনা ঘটেনি। ড্রেজার মালিক রনি খানের সঙ্গে সমস্যা হয়েছে বলে শুনেছি।

হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা যুবলীগ নেতা রনি খান বলেন, হামলার ঘটনায় আমার কোন সম্পৃক্ততা নেই।

গৌরনদী মডেল থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, হামলার কথা শুনেছি কিন্তু লিখিত কোন অভিযোগ হাতে পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

শেয়ারঃ