গৌরনদী সংবাদ

কাবাডি খেলা নিয়ে স্কুল ছাত্রীদের মধ্যে সংঘর্ষ ॥ আহত ৯

বরিশালের গৌরনদীতে জাতীয় স্কুল ও মাদ্রাসার গ্রীষ্মকালীন খেলাধুলা ও সাঁতার প্রতিযোগীতার কাবাডি গ্রুপের সেমিফাইনাল খেলায় দুই স্কুলের ছাত্রীদের মধ্যে হামলা-পাল্টাহামলা ও সংঘর্ষে উভয় স্কুলের ৯ ছাত্রী আহত হয়েছে। শনিবার দুপুরে গৌরনদী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে খেলা শেষে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গৌরনদী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ বনাম গৌরনদী পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় বালিকা একাদশের মধ্যে অনুষ্ঠিত সেমিফাইনাল খেলায় ৮ পয়েন্ট এগিয়ে থেকে গৌরনদী পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় বালিকা একাদশ বিজয়ী হয়।

গৌরনদী পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. অলিউল্লাহ জানান, শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কাবাডি খেলা শুরু হয়ে শেষ হয় দুপুর দেড়টার দিকে। খেলায় তার স্কুলের ছাত্রী একাদশ ৮ পয়েন্ট এগিয়ে থেকে বিজয়ী হয়। খেলা শেষে প্রতিযোগী ছাত্রীরা স্কুল ভবনের সামনে মাঠের পাশে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন। এ সময় গৌরনদী গালর্স স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রীদের মধ্য থেকে কে বা কারা ইটের সুরকি নিক্ষেপ করলে তাদের স্কুলের এক ছাত্রীর শরীরে গিয়ে পড়ে। এ সময় পাইলট স্কুলের ছাত্রীরা প্রতিবাদ করলে উভয় স্কুলের ছাত্রীদের মধ্যে হাতাহাতি এবং এক পর্যায়ে ইট-পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। পরে দুই স্কুলের শিক্ষক এবং খেলা আয়োজকরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে। সংঘর্ষে পাইলট স্কুলের ছাত্রী মনি আক্তার (১৩), মারজু আক্তার (১৩), লামিয়া আক্তার (১৩), সুমাইয়া আক্তার (১৪) আহত হয়। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। এই সংঘর্ষে উস্কানী দেয়ার জন্য তিনি গৌরনদী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের উচ্ছৃংখল শিক্ষার্থীদের দায়ী করেন।

অপরদিকে গৌরনদী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. আজাদ রহমান জানান, কাবাডি খেলায় প্রতিপক্ষ দল বিজয়ী হওয়ার পর তার প্রতিষ্ঠানের ছাত্রীরা মন খারাপ করে মাঠের একপাশে বিশ্রাম নিচ্ছিলো। এ সময় কে বা কারা ভবনের উপর থেকে বালু নিক্ষেপ করে। এ নিয়ে উভয় প্রতিষ্ঠানের ছাত্রীদের মাঝে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয় এবং এক পর্যায়ে তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রী মিনারা আক্তার (১৫), বৈশাখী আক্তার আক্তার (১৩), পিংকি আক্তার (১৪), শান্তা আক্তার (১৩) এবং চাঁদনী (১৫) আহত হয়। এদের মধ্যে মিনারা এ্যাজমা রোগী হওয়ায় তাকে বরিশাল শেরে-ই বাংলা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে। আহত অন্যান্যদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

গৌরনদী থানার ওসি মো. ফিরোজ কবির জানান, খেলা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে একটু উত্তেজনা হয়েছিলো। এ সময় উপস্থিত পুলিশ এবং দুই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে। পরবর্তী ইভেন্টগুলোর খেলা সুষ্ঠু সুন্দরভাবে অনুষ্ঠিত হয়।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...