গৌরনদী সংবাদ

আমার কিছু অব্যক্ত কথা -ফিরোজ কবির (ওসি) গৌরনদী মডেল থানা

আমার কিছু অব্যক্ত কথা ভেবেছিলাম কিছু লিখব না বা অব্যক্ত কথা প্রকাশও করবো না। কিন্তু যখন দেখি প্রতিনিয়ত মাদকাসক্ত সন্তানদের পিতা-মাতারা আমার কাছে এসে তাদের মাদকসেবী সন্তান সম্পর্কে তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা বর্ণনা করেন, তখন তাদের কষ্টগুলো আমার হৃদয়কে ছুয়েঁ যায়। একজন মাদকাসক্ত ব্যক্তির পিতা-মাতা/পরিবারই বোঝেন এর কি যন্ত্রনা। আমি ক্রমাগত এই ধরনের মানুষের মুখোমুখি। এমনও দেখা গেছে একজন দিনমজুর সারাদিনের অক্লান্ত পরিশ্রম করার পরে তার পরিবারের সদস্যদের মুখে আহার যোগানে জন্য বাজার থেকে চাল কিনে নিয়ে বাড়িতে ফেরেন, তখন তারই মাদকাসক্ত সন্তান সেই চালটুকু ছিনিয়ে নিয়ে মাদক ক্রয়ের যোগান দিয়েছে। বিষয়টি আসলে খালি চোখে অনুভব করার মত নয়। এজন্য দায়ী কে? আমরা না হয় নাই ব্যক্ত করলাম। কিন্তু এর থেকে ফিরে আসার পথতো আছে। সেই পথটার দূরত্ব দূর গ্রহের কোন নক্ষত্রের মত নয়। আপনি আমি তথা সমাজের সকলে যদি এক পা করে এগিয়ে আসি তাহলে মাদক নামক ভয়াল গ্রাসের হাত থেকে এই সমাজের প্রতিটি মানুষকে রক্ষা করা সম্ভব।

আমি যখন এই জনপদের মাটিতে জীবনে প্রথম বারের মত পা রেখেছিলাম তখন আমার ভিতরে একটা ভাললাগা বোধ কাজ করেছিল। যখন জানতে পারলাম এই জনপদটি মাদক নামক বিষ বৃক্ষে আবক্ষে নিম্মজ্জিত, তখন নিজের বিবেক থেকেই একটি প্রতিজ্ঞা করেছিলাম, আমি এই জনপদকে মাদক মূক্ত করে ছাড়ব ইনশাল্লাহ্, এরই প্রেক্ষিতে আমার এই মাদক বিরোধী অভিযান/যুদ্ধ। আমি এই জনপদের প্রতিটি মানুষকে কথা দিয়েছিলাম আপনাদের সাথে আছি, আমি আমার কথা রাখব, ইনশাল্লাহ।

আমার এই মাদক বিরোধী কার্যক্রম যখন পরিপূর্ণভাবে চলমান তখন বিভিন্ন বাঁধা আমার সামনে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে। আমি সেই প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করার চেষ্টা অব্যহত রেখেছি। মাদকের বিরুদ্ধে মূল অভিযান আমার এখনো শুরু হয় নাই। আগামীতে হবে।-ইনশাল্লাহ্

সম্প্রতি একটি ঘটনা আমার হৃদয়ে অনেক রক্তক্ষরণ ঘটিয়েছে যেখানে গোটা গৌরনদীবাসী তথা আপমর জনতা মাদক নামক ভয়াল গ্রাস হতে মুক্তি চায়। সন্তানদের সুন্দর ভবিষ্যৎ কামনা করেন। সে সমস্ত অভিভাবকগণ, কলম সৈনিক, সুশীল সমাজ, গণ্যমান্য ব্যক্তি ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দগণ আমাকে স্ব-উৎসহে উৎসহ যুগিয়েছেন ও সাদুবাদ জানিয়েছেন সর্বপরি পাশে থেকেছেন। এমতাবস্থায় দেখা যায় একটি মাদক ব্যবসায়ী পরিবার যে পরিবারের দুইজন সদস্য এবং উক্ত দুইজন সদস্যের বিরুদ্ধে গৌরনদী মডেল থানায় এক ডজন তথা ১২টি নিয়মিত মামলা যাহা মাদক, ডাকাতি সহ পুলিশ এ্যাসল্ট মামলা রয়েছে এবং সেই সমস্ত মামলার অভিযোগ পত্র বর্তমানে বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন। উক্ত মামলার পলাতক আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে ১৬টি গ্রেফতারী পরোয়ানা গৌরনদী মডেল থানায় মূলতবী আছে।

পাঠক আপনাদের কাছে প্রশ্ন রেখে গেলাম, কোন ভাল পরিবারের সন্তানদের বিরুদ্ধে কি কখনো এগুলো মামলা বা গ্রেফতারী পরোয়ানা থাকতে পারে?

যখন সেই পরিবারের একজন সদস্যকে বিজ্ঞ আদালতের মাদক মামলায় দুটি গ্রেফতারী পরোয়ানা ভুক্ত পলাতক আসামী হওয়ায় পুলিশ গ্রেফতার করলো তখন উক্ত আসামী মনির সরদার পালানোর চেষ্টা করেছিল। পুলিশকে উদ্দেশ্যে করে অশ্লীল ভাষায় কথা বার্তা বলেছিল। সে গ্রেফতার এড়ানোর জন্য ধস্তাধস্তি করেছিল। তখন পালানোর চেষ্টাকালে মাটিতে পড়ে গিয়ে ডান হাতের কাধের জয়েন্টে কিছুটা আঘাত পেয়েছিল। এসময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে মৃদু লাঠি চার্জ করে। উক্ত কাজে পুলিশের কোন অসৎ উদ্দেশ্য ছিল না এবং আসামী মনির সরদারের হাতও কিন্তু ভেঙ্গে যায় নাই। আসামীর হাতে কোন প্লাষ্টার নাই। শুধু মাত্র একটি এলবো ব্যাগ ঝুলানো আছে যা আপনারা ছবিতে দেখেছেন। আসামীর হাতের এক্স-রে কপি বিজ্ঞ আদালতে জমা দেওয়া আছে।

এইরুপ একটি মাদক ব্যবসায়ী তথা জঘন্য সব অপরাধে অভিযুক্ত পরিবারের জন্য এত মায়াকান্না হয়, মিথ্যা কাহিনী সাজানো হয় তাহলে সাধারন অসহায় জনগন এর পাশে দাঁড়াবে কে? পাঠক আপনাদের মাঝেই এই প্রশ্ন রেখে গেলাম।

পেপার পত্রিকায় দেখলাম পুলিশ নাকি টাকার জন্য প্রবাসীকে পিটিয়েছে। পুলিশ যদি টাকার জন্যই কাজ করে থাকে তাহলে হিরা মাঝি, মানিক মাঝি সহ অসংখ্য ব্যবসায়ীরা গ্রেপ্তার হত না। কারন তাদের গ্রেফতার না করে পুলিশ অনেকটাই অবৈধ লাভবান হতো। তাহলে সেটা যখন হয় নাই প্রবাসীকে টকার জন্য পুলিশ পিটিয়েছে এই ঘটনাটি কতটুকু যুক্তিযুক্ত তা বিচার করার দায়িত্ব আমি আপনাদেরকেই দিয়ে গেলাম।

এএসআই (নিরস্ত্র)মহিউদ্দিন কখনোই উক্ত আসামী মনির সরদারের পরিবারের নিকট তিন লক্ষ্য টাকা চাঁদা দাবী করে নাই বা অসৎ উদ্দেশ্যে ব্যক্তি স্বার্থে চরিতার্থ করার জন্য লাঠি চার্জ করে নাই। সম্পূর্ণ বিষয়টি ছিল পুলিশের নিয়মিত দ্বায়িত্বের অংশ। কারন আসামী কখনোই নিজের ইচ্ছায় পুলিশের কাছে ধরা দেয়নাই ও বিজ্ঞ আদালতে আত্মসম্পর্ণ করে নাই। আসামীকে কৌশলে ধরে নিয়ে আসতে হয়। এই আসামীর ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে।

সর্বপরি আমি কাউকে আঘাত করার জন্য আমার অব্যক্ত কথাগুলো ব্যক্ত করি নাই। আমি এই জনপদকে মাদকের ভয়াল গ্রাস থেকে মুক্ত করার জন্য যত আইনগত ব্যবস্থা আছে তা প্রয়োগ করতে পিছ পা হব না।

 

পাঠক আপনারাই বলুন পুলিশ কি এগিয়ে যাবে না পিছিয়ে যাবে?

-মোঃ ফিরোজ কবির
অফিসার ইনচার্জ
গৌরনদী মডেল থানা, বরিশাল।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...