গৌরনদীতে ছাত্রলীগ দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আহত-৫

বরিশালের গৌরনদী উপজেলা সদরে গতকাল রবিবার দুপুরে কলেজ ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে হামলা পাল্টা হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে ৫ জন আহত হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী, স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ জানান, গত শনিবার বিকেলে কলেজ মাঠে সরকারি গৌরনদী কলেজ ছাত্র সংসদের উদ্যোগে শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্ধোধন করা হয় । উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে বিরোধকে কেন্দ্র করে কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও সরকারি গৌরনদী কলেজ ছাত্রসংসদের ভিপি সুমন মাহমুদের সমর্থকরা কলেজ ছাত্রলীগের নেতা মো. আতিক মিয়ার সমর্থক মোঃ আলী সরদার(২২)র উপর হামলা চালিয়ে তাকে জখম করে। এ ঘটনার জের ধরে রবিবার দুপুরে উপজেলা গেটে ভিপি সুমন মাহমুদের উপর হামলা চালায় ছাত্রলীগ নেতা আতিক ও তার ১৫/২০ জনসমর্থক।

ভিপি সুমন মাহমুদ অভিযোগ করেন, রবিবার গৌরনদী উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে মাদক বিরোধী সভা শেষে বাড়ি ফেরার পথে দুপুর পোনে দুইটায় উপজেলা গেটে পৌছলে প্রতিপক্ষ আতিক মিয়ার নেতৃত্বে ১৫/২০জন সমর্থক লাঠিসোটা নিয়ে অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়ে আমাকে পিটিয়ে জখম করেছে।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুরে ভিপি সুমনের উপর হামলার খবর ছড়িয়ে পড়লে ভিপি সুমনের সমর্থকরা লাঠিসোটা নিয়ে প্রতিপক্ষের উপর হামলা চালায়। এসময় উভয় গ্রুপের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। দুপুর সোয়া দুইটায় পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে লাঠিচার্জ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয় এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। সংঘর্ষে ও পুলিশের লাঠিপেটায় কমপক্ষে ৫জন আহত হয়েছে।

ভিপি সুমনের উপর হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে আতিক মিয়া বলেন, হামলার ঘটনায় আমার কোন সম্পৃক্ততা নেই। আহত গুরুতর দুইজনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আতিক মিয়ার পক্ষ থেকে থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়া হলেও ভিপি সুমনের পক্ষ থেকে এখনো কোন অভিযোগ করা হয়নি। এলাকার উত্তেজনা বিরাজ করছে।

গৌরনদী মডেল থানার র্ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মো. ফিরোজ কবির বলেন, লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে এখনো কোন মামলা হয়নি। তবে পরিস্তিতি শান্ত রয়েছে।




© Gournadi.com | Developed by Codeplate