আগৈলঝাড়ায় বাল্য বিয়েতে রাজি না হওয়ায় হামলা

বাল্য বিয়েতে রাজি না হওয়ায় এক স্কুল ছাত্রীসহ তার মা ও বোনকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়েছে। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহত দুই বোন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে অভিযোগ দিতে আসার পথে তাদের অপহরনের সময় পুলিশ অমল সরকার নামের একজনকে আটক করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার সকালে বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলা সদরে।

জানা গেছে, উপজেলার বারপাইকা গ্রামের নিপুল করের কন্যা চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষা দেয়া ছাত্রী নিশি করকে তার দুই কাকা জোরপূর্বক একই উপজেলার মোল্লাপাড়া গ্রামের আদিত্য সরকারের পুত্র অমল সরকারের সাথে বাল্যবিয়ে ঠিক করেন। আগামী বৃহস্পতিবার নিশির সাথে অমলের বিয়ের দিন ধার্য করা হয়। ওই বিয়েতে নিশি কর রাজি না হওয়ায় সোমবার রাতে তার কাকা বিপুল কর ও রনি কর স্কুল ছাত্রী নিশি করকে মারধর করে। এতে ওই স্কুলছাত্রীর মাথায় রক্তাক্ত জখম হয়। এসময় বাঁধা দিতে আসলে নিশির মা অনিতা কর, বোন নবম শ্রেণীর ছাত্রী ঈশিতা করকেও পিটিয়ে আহত করা হয়। রাতেই আহত নিশি, অনিতা ও ঈশিতাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত নিশি ও ঈশিতা মঙ্গলবার সকাল দশটার দিকে বিষয়টি জানাতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে যাবার পথে পাত্র অমল সরকার ও তার সহযোগীতা নিশি ও ঈশিতাকে অপহরনের চেষ্ঠা চালায়। এসময় দুই বোনের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে ধাওয়া করে অমলকে আটক করে থানা পুলিশের কাছে সোর্পদ করে।

আগৈলঝাড়া থানার এসআই মোশারফ হোসেন আটকের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় স্কুল ছাত্রী নিশি বা তার পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হলে আটককৃত অমলের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

শেয়ারঃ