বাংলাদেশে না আসার আক্ষেপ নেই হেলসের

নিরাপত্তার অজুহাত দেখিয়ে তিন মাস আগে বাংলাদেশে খেলতে আসেননি ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের সীমিত ওভারের অধিনায়ক ইয়ন মরগ্যান। একই কারণে আসেননি অ্যালেক্স হেলসও। সম্প্রতি মরগ্যান বলেছেন, ওই সিদ্ধান্তে আর আটকে নেই তিনি।

এবার তার পথে হেঁটেছেন অ্যালেক্স হেলস। ব্রিটিশ গণমাধ্যম ডেইলি মেইলকে তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, বাংলাদেশে না আসা নিয়ে তার কোনো আক্ষেপ নেই।

বললেন, ‘নিঃসন্দেহে ইংল্যান্ডের সফর বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য দারুণ একটা খবর ছিল। কিন্তু ঢাকায় হামলার পর কোনো বিদেশি দলই ওখানে যায়নি। এমনই অস্ট্রেলিয়া দল সফর স্থগিত করেছিল। ফলে ওখানে গিয়ে আদৌ আমি ক্রিকেটে পুরো মনোযোগ দিতে পারবো কি না-সেটা নিয়ে সন্দেহ ছিল। আমি আমার সিদ্ধান্তে স্থির ছিলাম। সিদ্ধান্তটা নিয়ে আমার এক বিন্দুও আক্ষেপ নেই। এটা তো আর বাকি জীবন বয়ে বেড়ালে চলবে না।’

ভারত সফরের অপেক্ষায় আছেন অ্যালেক্স হেলস। ছবি: সংগৃহীত

এর আগে পাকিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডেতে ১৭১ রানের দানবীয় এক ইনিংস খেলেছিলেন হেলস। কিন্তু টেস্ট পারফরম্যান্স ছিল সাদামাটা। ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) নির্বাচক কমিটি আদৌ তাকে বাংলাদেশ-ভারত সফরের জন্য বিবেচনা করবেন কি না-সেটা নিয়েও ছিল সংশয়। তবে হেলস নিজেই খেলতে আপত্তি জানান।

ব্রিটিশ মিডিয়া তাই হেলসের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের ইতি টেনে দিয়েছিল। বাংলাদেশ ও ভারতের মাটিতে বেন ডাকেট, হাসিব হামিদ, কিটন জেনিংসদের পারফরম্যান্সে হেলসের বিপদ বাড়ায়। তবে নির্বাচকদের আস্থা ফিরেছে হেলসের ওপর।

নির্বাচকদের বিশ্বাসের মর্যাদা দিতে চান অ্যালেক্স হেলস। ছবি: সংগৃহীত

জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি দলে ফিরেছেন ২৮ বছর বয়সী হেলস। জানুয়ারিতে ভারতের মাটিতে তিন ওয়ানডে আর তিন টি-টোয়েন্টি খেলবে ইংল্যান্ড।

হেলস জানালেন বাংলাদেশে না আসার সিদ্ধান্তটা তার জন্য মোটেও সহজ ছিল না। বললেন, ‘সিদ্ধান্ত নেওয়াটা কোনো ভাবেই আমার জন্য সহজ ছিল না। ভাবতে ভাবতে অনেক নির্ঘুম রাত কাটিয়েছি। পরিবার, বন্ধু-বান্ধব, প্রেমিকার সঙ্গে কথা বলেছি, তারপরই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

সূত্র: ডেইলি মেইল




© Gournadi.com | Developed by Codeplate