গৌরনদী সংবাদ

ইউপি নির্বাচন – বরিশালের সর্বত্র কেন্দ্র দখলের আশঙ্কা!

এইচ এম মাকসুদ আলীঃ আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বরিশালের দশটি উপজেলার ৭৩টি ইউনিয়নে আগামী ২২ মার্চের নির্বাচনে প্রতিটি ভোট কেন্দ্র দখল করে ভোট ডাকাতির আশঙ্কা করছেন খোঁদ আ’লীগের বিদ্রোহী ও বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীদের। তবে এ অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে অবাধ ও সুষ্ঠ ভোটের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ক্ষমতাসীন দল আ’লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থীরা।

আ’লীগের বিদ্রোহী ও বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা অভিযোগ করেন, সরকার সমর্থিত প্রার্থীরা আচরণবিধি লঙ্ঘন করলেও কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছেন না নির্বাচনী কর্মকর্তারা। অপরদিকে পুলিশি হয়রানি ও সরকারদলীয় নেতাকর্মীদের হুমকি ও হামলার শিকার হচ্ছেন বিরোধী প্রার্থীরা। নির্বাচন কমিশন (ইসি) ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের এমন কর্মকান্ডে ভোটের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলছেন সাধারণ ভোটাররা। এ বিষয়ে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এর সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার অতিসম্প্রতি নগরীতে একটি মতবিনিময় সভায় বলেন, এভাবে চলতে থাকলে ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে আসার আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে।

এদিকে নির্বাচনকে সামনে রেখে জেলার সর্বত্র শুরু হয়েছে ব্যাপক সহিংসতা। ইতোমধ্যে জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর নগর (আগরপুর) ইউনিয়নের বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী অধ্যাপক কামরুল আহসান হিমুর এক সমর্থককে প্রকাশ্যে হাতুড়ি পেটা করে গুরুতর আহত করেছে নৌকা মার্কার প্রার্থীর সমর্থকেরা। গত ৫ মার্চ গৌরনদী উপজেলার নলচিড়া ও সরিকল ইউনিয়নে আ’লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় নিজ দলের বিদ্রোহী ও বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর কমপক্ষে ৪০জন সমর্থক আহত হয়েছেন। এসময় ২০টি মোটরসাইকেল ও একটি বাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব হামলায় গুরুতর আহতদের শেবাচিমসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

নলচিড়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র (আ’লীগের বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থী মীর মাসুদ উদ্দিন অভিযোগ করেন, আ’লীগ সমর্থিত প্রার্থীর সমর্থকেরা শনিবার দুপুরে প্রকাশ্যে তার আনারস মার্কার নলচিড়া বাজারের প্রধান নির্বাচনী অফিসে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করে। ওইদিন বিকেলে তার শতাধিক সমর্থকেরা ৫০টি মোটরসাইকেল নিয়ে পিঙ্গলাকাঠী এলাকার একটি উঠান বৈঠকে যোগদেয়ার জন্য রওয়ানা হন। পথিমধ্যে পিঙ্গলাকাঠী বাজারে বসে নৌকা মার্কার সমর্থকেরা তার সমর্থকদের ওপর অর্তকিতভাবে হামলা চালায়। এসময় তার ৪০জন কর্মী সমর্থকদের কুপিয়ে আহত ও তাদের ব্যবহৃত ২০টি মোটরসাইকেল ভাংচুর করা হয়। হামলায় গুর”তর আহত লিয়ন সরদারকে শেবাচিম ও অন্যান্যদের বিভিন্নস্থানে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ ব্যাপারে আ’লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী গোলাম হাফিজ মৃধা বলেন, আনারস প্রতীকের প্রার্থীর কর্মীরা মোটরসাইকেল মহড়া নিয়ে পিঙ্গলাকাঠী বাজারে তার সমর্থক দু’জনকে পিটিয়ে আহত করে। এসময় স্থানীয়রা তাদের ধাওয়া করে। গৌরনদী মডেল থানার ওসি মোঃ আলাউদ্দিন মিলন জানান, পিঙ্গলাকাঠী বাজারে জনতার ধাওয়া খেয়ে ফেলে যাওয়া ১১টি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে।

অপরদিকে একইদিন সন্ধ্যায় সরিকল ইউনিয়ন পরিষদের বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মঞ্জুর হোসেন মিলনের ধানের শীর্ষ প্রতীকের পোষ্টার লাগানোর অযুহাতে আ’লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকেরা মহিষা গ্রামের আ’লীগ কর্মী রনো ঋষীকে পিটিয়ে গুর”তর আহত করেছে। রনো ঋষী অভিযোগ করেন, হামলাকারীরা একইদিন রাতে তার বাড়িতে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর ও বাড়ির নারীদের মারধর করে আহত করেছে।

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ইউনিয়ন আ’লীগের এক প্রভাবশালী নেতার সাথে রনো ঋষীর পূর্ব বিরোধের জেরধরে এ হামলা চালিয়ে ধানের শীর্ষ প্রতীকের পোষ্টার লাগানোর মিথ্যে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। এছাড়া শনিবার দুপুরে উজিরপুরের সাতলা ইউনিয়নের স্বতন্ত্র (আ’লীগের বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ তাজিম মোল্লা কর্তৃক নৌকা মার্কার সমর্থক দক্ষিণ সাতলা দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা শাহীন মোল্লা, মোবারেক হোসেন, শ্যাম সমদ্দার ও কবির বিশ্বাসকে মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বাকেরগঞ্জের কবাই ইউনিয়নে জাতীয় পার্টির মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ রফিকুল ইসলাম সবুজের গণসংযোগকালে আ’লীগ মনোনীত প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় জাপা প্রার্থীসহ কমপক্ষে আটজন গুর”তর আহত ও সাতটি মোটরসাইকেল ভাংচুর করা হয়েছে।

বিএনপি মনোনীত ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীরা অভিযোগ করেন, প্রথম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার পর থেকে তাদের (প্রার্থীদের) সহ সমর্থকদের বিভিন্ন ধরনের হুমকির পাশাপাশি হামলার ঘটনা ঘটে। সরকার সমর্থিত প্রার্থীদের এই হামলার প্রতিকার চেয়ে বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা রিটার্নিং অফিসারের কাছে অভিযোগ দায়ের করেও কোনো প্রতিকার পাননি। তারা আরও অভিযোগ করেন, ভোটেরদিন (২২ মার্চ) ভোর থেকেই কেন্দ্র দখল করে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীরা ব্যালট পেপারে সিল মেরে বাক্স ভর্তি করে রাখবেন বলে প্রকাশ্যে হুমকি দিয়ে আসছেন। এতে করে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন আদৌ হবে কিনা এনিয়ে নানা সংশয় দেখা দিয়েছে।


ফেসবুকে মন্তব্য করুন :

টি মন্তব্য
মন্তব্যে প্রকাশিত যেকোন কথা মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। Gournadi.com-এর সম্পাদকীয় অবস্থানের সঙ্গে এসব অভিমতের কোন মিল নেই। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে Gournadi.com কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নিবে না

আরো পোষ্ট...

Leave a Reply